আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা আফিয়া । অর্থ । তাৎপর্য ও উপকারীতা

আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা আফিয়া- সুস্থতার জন্য আমারা এই দোয়াটি করে থাকি। কেননা সুস্থতা হচ্ছে আল্লাহ তায়ালা প্রদত্ত একটি শ্রেষ্ঠ নিয়ামত। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম প্রতিনিয়ত সুস্থতা চেয়ে আল্লাহর কাছে দোয়া করতেন। সেসব হাদিস থেকে আমারা জানতে পারি সুস্থ থাকা ও এর জন্য দোয়া করা কতটা গুরুত্বপূর্ণ। যেমন একটি হাদিসে তিনি বলেন, ‘তোমরা আল্লাহর কাছে ক্ষমা ও সুস্থতা প্রার্থনা কর। কেননা ঈমানের পর সুস্থতার চেয়ে উত্তম নেয়ামত কাউকেই প্রদান করা হয়নি।’ ( তিরিমিযি : ৩৫৫৮)

আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা আফিয়া । অর্থ ও ব্যাখ্যা

এই দোয়াটির মূল আরবি বাক্য হল:

اللهم إني أسألك العافية

উচ্চারণ: আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা আফিয়া।

অনুবাদ: হে আল্লাহ আমি আপনার কাছে সুস্থতা কামনা করছি।

ব্যাখ্যা: সুস্থতা কামনার জন্য এটি একটি প্রশিদ্ধ দোয়া। হাদিসে এই শব্দগুলো বারবার এসেছে। তবে হুহহু এই দোয়াটি আমরা হাদিসে পাইনি। এটার সাথে অন্যান্য শব্দ ও অর্থ যুক্ত রয়েছে। তবে এককভাবে সুস্থতা কামনার জন্য এই দোয়াটির শব্দ ও কাঠামো আদর্শ হিসাবে গণ্য। আলোচ্য উদ্দেশ্যে এই দোয়াটি করতে কোনো আপত্তি নেই।

আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা আফিয়া
আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা আফিয়া

আফিয়া বা সুস্থতার দোয়া সম্পর্কিত হাদিস

আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা আফিয়া, এই ব্যাক্যাংশটি হচ্ছে সুস্থতার দোয়া বাচক শব্দ দ্বারা ঘটিত। আর হাদিসে চেয়ে দোয়া করতে বেশ উৎসাহ দেওয়া হয়েছে। এ রমক কিছু হাদিস আমরা নিম্নে পেশ করছি।

عن العباس بن عبد المطلب قال: قلت: يا رسول الله؛ علمني شيئاً أسأله الله عز وجل، قال: سل الله العافية، فمكثت أياماً ثم جئت فقلت: يا رسول الله علمني شيئاً أسأله الله، فقال لي: يا عباس يا عم رسول الله: سل الله العافية في الدنيا والآخرة

অনুবাদ: আব্দুল মুত্তালিব ইবনে আব্বাস বলেন, আমি বললাম হে আল্লাহর রাসুল, আমাকে কিছু শিক্ষা দিন, যার দ্বারা আমি আল্লাহ তায়ার কাছে প্রার্থনা করব। তিনি ( রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ) বললেন, আপনি আল্লাহর কাছে সুস্থতা কামনা করুন। অতপর আমি কিছুদিন পর পুনরায় গিয়ে বললাম, হে আল্লাহর রাসুল, আমাকে কিছু শিক্ষা দিন, যার দ্বারা আমি আল্লাহ তায়ার কাছে প্রার্থনা করব। তখন তিনি আমাকে বললেন, হে আব্বাস, হে রাসুলুল্লাহ এর চাচা, আপনি আল্লাহর কাছে দুনিয়া ও আখিরাতে আল্লাহর কাছে সুস্থতা কামনা করুন।

ব্যাখ্যা: তিরিমিযির ব্যাখ্যাগ্রন্থ তুহফাতুল আহওয়াযিতে শায়খ মুবারকপুরি বলেন, ইবনে আব্বাসের বারংবার প্রশ্নের জবাবে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাকে একই উত্তর অর্থাৎ সুস্থতা কামনা করার কথা বলাটা এ কথার প্রমাণ বহন করে যে সুস্থাত দোয়ার সমান অন্য কোনো দোয়া নেই। আল্লাহ তায়ালার কাছে যে সব বাক্য দ্বারা দোয়া করা হয় তার কোনোটাই এটির আসনে উন্নীত নয়।

রাসুল সা. এর জীবনী ও সুস্থতার দোয়া

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সকালে ও বিকালে আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা আফিয়া এই বাক্যটি দ্বারা সুস্থতার জন্য দোয়া করতেন। সেই সাথে তিনি এই বাক্যোর আগে বা পরে অন্য শব্দও যোগ করে দোয়া করেছেন বলে একাধিক সহিহ হাদিস রয়েছে। যেমন ইবনে উমর রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন,

 لم يكن رسول الله صلى الله عليه وسلم يدع هؤلاء الدعوات حين يمسي وحين يصبح: اللهم إني أسألك العافية في الدنيا والآخرة، اللهم إني أسألك العفو والعافية في ديني ودنياي وأهلي ومالي، اللهم استر عورتي، اللهم احفظني من بين يدي ومن خلفي وعن يميني وعن شمالي ومن فوقي، رواه أحمد وأبوداود وغيرهما، وصححه الألباني.

অনুবাদ: রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কখনই সকালে ও বিকালে এই দোয়াগুলো ছাড়তেন না। হে আল্লাহ আমি আপনার কাছে দুনিয়া ও আখিরাতে সুস্থতা কামনা করছি। হে আল্লাহ আমি আপনার কাছে ক্ষমা ও সুস্থাতা কামনা করছি আমার দীন ও দুনিয়া, পারিবার ও মালের ব্যাপারে। হে আল্লাহ আপনি আমার গোপনীতা ঢেকে রাখুন। হে আল্লাহ আপনি আমার সামন-পিছন ডান-বাম ও উপর দিক থেকে সুরক্ষা দান করুন। ( হাদিসটি বর্ণনা করেছেন, ইমাম আহমদ, আবু দাউদ ও অন্যান্যরা । আর শায়খ আলবানি এটাকে সহিহ বলে অভিমত দিয়েছেন।

সুস্থতার দোয়ার জন্য অন্যান্য বাক্য

আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা আফিয়া এই বাক্যটির পাশাপাশি অন্যান্য বাক্য দ্বারা সুস্থতার দুআ করা যায়। এ রকম কিছু বাক্য নিম্নে দিচ্ছি।

اللهم إني أسألك العفو والعافية في ديني ودنياي وأهلي ومالي

উচ্চারণ: আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা আল-আফওয়া ওয়াল আফিয়া, ফি দিনি ওয়া দুনয়িয়া, ওয়া আহলি, ওয়া মালি।

অনুবাদ: হে আল্লাহ আমি আপনার কাছে ক্ষমা ও সুস্থাতা কামনা করছি আমার দীন ও দুনিয়া, পারিবার ও মালের ব্যাপারে।

اللهم إني أعوذ بك من جهد البلاء، ودرك الشقاء، وسوء القضاء، وشماتة الأعداء

উচ্চারণ: আল্লাহুম্মা ইন্নি আউজুবিকা মিন জাহদিল বালা, ওয়া দারাকিশ শাকা, ওয়া সু-ইল ক্বাদা, ওয়া শামাতাতিল আ’দা।

অনুবাদ: হে আল্লাহ, আমি আপনার কাছে আশ্রয় চাই সকল প্রকার বিপদ থেকে, দুর্ভাগ্যে পতিত হওয়া থেকে, ভাগ্যের অশুভ পরিণতি থেকে এবং শত্রুর আনন্দিত হওয়া থেকে। 

দোয়াটির তাৎপর্য

মানুষের জীবনে সুস্থতা অমূল্য সম্পদ। যে ব্যক্তি অসুস্থ হয় কেবল সেই অনুধাবন করতে পারে সুস্থতার মূল্য। অসুস্থ ব্যক্তি পুরো পৃথিবীর বিনিময়ে হলেও সুস্থাতা চায়। একজন অসুস্থ ব্যক্তির কাছে পুরো পৃথিবীর মূল্য তার সুস্থতার বিনিময়ে খুবই তুচ্চ। অন্যদিকে অসুস্থ ব্যক্তি সময়ের পরিক্রমায় নিজ প্রিয়জন ও পরিবারের কাছে একটি অসার বোঝা হিসাবে গণ্য হতে থাতে। সে সুষ্ঠভাবে ইবাদাত করতে পারে না। ঠিক মত খাদ্য খেতে পারে না, ঘুমাতে পারে না। তার নিজের কাছেই নিজের জীবন দুর্বিষহ  হয়ে উঠে।

এছাড়াও অসংখ্য অসহ্য যন্ত্রণা ও লাঞ্ছনা ভোগ করতে হয় একজন অসুস্থ ব্যক্তিকে। এ সব কিছু বিবেচনা করলে আপনি আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা আফিয়া বা সুস্থতার দুআ কেন অন্য সকল দুআ থেকে বিশেষত্ব ও গুরুত্বপূর্ণ সেটা সহজেই অনুমেয়।

সুস্থার দোয়া ও উপকারীতা

আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা আফিয়া এই দোয়াটির শারীরিক, মানসিক ও আধ্যাত্মিক ক্ষেত্রে অসংখ্য উপকার রয়েছে, যারা আন্তরিকতার সাথে এটি পাঠ করবে তারা সেসবউপকারিতা লাভ করবে:

  • শারীরিক স্বাস্থ্য: এই দোয়াটি শারীরিক স্বাস্থ্য এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার জন্য আল্লাহর সুরক্ষা লাভের উপায়। আপনি আন্তরিকভাবে আল্লাহর কাছে দোয়া করলে নিজের অজান্তেই আল্লাহ আপনাকে নানান রোগ ব্যধি থেকে রক্ষা করতে পারেন। এটি দুর্যোগ, দুর্ঘটনা এবং প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে ঢাল হিসেবে কাজ করে, যা আল্লাহর পরিকল্পনার প্রতি আস্থার অনুভূতি জাগিয়ে তোলে।
  • মানসিক সুস্থতা: শারীরিক স্বাস্থ্য ছাড়াও, দুআ মন এবং মানসিক সুস্থতাকে অন্তর্ভুক্ত করে। এটি আল্লাহর পক্ষ থেকে নিজের দুশ্চিন্তার দূর করা, প্রফুল্ল জীবন যাপন, মানসিক প্রশান্তি এবং উদ্বেগ বা চাপ থেকে মুক্তি লাভের উপায়।
  • আধ্যাত্মিক উন্নতি: এই দোয়াটি আল্লাহর সাথে একটি শক্তিশালী সংযোগ বৃদ্ধি করে এবং আধ্যাত্মিকতাকে উন্নত করে। এটি প্রয়োজনের সময় আল্লাহর দিকে ফিরে আসার এবং তাঁর নির্দেশনা ও সুরক্ষা খোঁজার পাথেয় হিসাবে কাজ করে।
  • কৃতজ্ঞতা এবং তৃপ্তি: দোয়ার মধ্যে কৃতজ্ঞতার অর্থ নিহিত। দোয়ার দ্বারা নিজের অক্ষমতা ও আল্লাহর তায়ালার প্রতি মুখাপেক্ষিতা প্রকাশ পায়, সেইসাথে তা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করারও মাধ্যম। কেননা এটি নিজের কাছে যা আছে তা নিয়ে সন্তুষ্টির অনুভূতি গড়ে তোলে।

Leave a Comment